About Us

বাঙালি জাতির অনেক ইতিহাসের সাথে ঐতিহ্যবাহী শাহজাদপুর পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় মিশে আছে। ইতিহাসের সৃষ্টি ও এর লালনে এই বিদ্যালয়ের অনেক ভূমিকা আছে। ১৯৫২ সালের ভাষার সংগ্রাম থেকে শুরু করে ১৯৬৬ এর ছয় দফা, ১৯৬৯ এর গণঅভ্যুত্থান, ১৯৭১ এর মুক্তির সংগ্রাম অর্থাৎ দেশ সৃষ্টির সংগ্রাম এবং সর্বোপরি ১৯৯০ এর স্বৈরাচার উৎখাত সংগ্রাম সহ সকল সংগ্রামে অত্র বিদ্যালয়ের এলামনাইদের ভূমিকা শুধু সংগ্রামে অংশ নেয়ার মধ্যেই সীমাবদ্ধ ছিল না অধিকন্ত সংগ্রামে তাদের নেতৃত্বদানও ছিল খুবই গুরুত্বপূর্ণ। ১৮৮২ সালে বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। বিদ্যালয়ের শুরু থেকে শত শত অ্যালামনাইবৃন্দ সময়ে সময়ে গোটা জাতির বাতিঘর হয়ে আবির্ভুত হয়েছেন । ইতোমধ্যেই এই বিদ্যালয়ের বয়স ১৩৭ বছর পূর্ণ হয়েছে । আমি যখন কিশোর তখন এই বিদ্যালয়ের ১০০ বছর উৎযাপিত হতে দেখেছিলাম। কিন্ত আমার জানা মতে আজ অবধি ঐতিহ্যবাহী এই প্রতিষ্ঠানটির কোনো অ্যালামনাই এসোসিয়েশন গঠিত হয় নাই। কিন্তু অ্যালামনাই এসোসিয়েশন হলে এর উদ্যোগে বিদ্যালয়ের তথা বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের কল্যাণে বিভিন্ন কল্যাণমূলক /গঠনমূলক কর্মকাণ্ড পরিচালিত হতে পারে। স্বভাবতই অনতিবিলম্বে শাহজাদপুর পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় অ্যালামনাই এসোসিয়েশন গঠিত হওয়া প্রয়োজন। এই উদ্যোগের অংশ হিসেবে ঢাকা / শাহজাদপুর কয়েকটি জমায়েত ( ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র হলেও ) প্রয়োজন । কয়েকটি জমায়েতের পরে গ্রহণযোগ্য কাউকে আহবায়ক এবং কাউকে সদস্যসচিব করে একটি আহবায়ক কমিটি করা যেতে পারে । উল্লেখিত আহবায়ক কমিটির তত্ত্বাবধানে নিন্মলিখিত কাজ করা যেতে পারে এবং উক্ত কাজগুলো সম্পন্ন হওয়ার পরে একটি সম্মেলনের মাধ্যমে একটি পূর্ণাঙ্গ কমিটি করা যেতে পারে : ১। কয়েকটি উপকমিটি গঠন । গঠিত উপকমিটিগুলোকে কাজে লাগিয়ে গঠনতন্ত্র তৈরিসহ গুরুত্বপূর্ণ আরো কাজ শেষ করা। ২। এসোসিয়েশনের নথিপত্র তৈরি করা , ৩। সদস্য ফরম তৈরি করে সদস্য সংগ্রহ শুরু করা , ৪। এসোসিয়েশনের একটি ওয়েবসাইট নির্মাণের উদ্যোগ গ্রহণ করা। ৫। অপেক্ষাকৃত বয়োজ্যেষ্ঠদের খুঁজে বের করা ,৬।তাঁদের মাধ্যমে সমসাময়িক সময়ের এলামনাইদের খুঁজে বের করার ব্যবস্থা করা ৭। ফেইসবুক গ্রুপসহ বিভিন্ন উপায়ে ব্যাপক ভিত্তিতে এসোসিয়েশনের সাথে সংযুক্ত করতে বিভিন্নমুখী প্রচারণা চালানো প্রয়োজন। আহবায়ক কমিটি হওয়ার আগে পর্যন্ত উদ্যোগী সকলকে সমন্বিতভাবে কাজগুলো পরিচালনা করতে হবে। এ জন্য তরিঘড়ি না করে দলমতের উর্ধে থেকে যুক্তিযুক্ত সময় নিয়ে সবাইকে সংযুক্ত করার ব্যবস্থা অধিক জরুরী।সবাইকে এলামনাই হিসেবে সকল কাজে যুক্ত করা এবং তাঁদের পরামর্শ ও সহযোগিতা গ্রহণ করা। প্রয়োজনে সক্ষম বয়োজ্যেষ্ঠদের সমন্বয়ে একটি উপদেষ্টা কমিটি করে তাঁদের মাধ্যমে অপেক্ষাকৃত বয়োজ্যেষ্ঠদের এসোসিয়েশনের সাথে সম্পৃক্ত রাখা।